আপনার অবচেতন মন ও ঘুমের বিষ্ময়

আপনার অবচেতন । ঘুম যখন আপনাকে পরামর্শ দেয়। এক তরুণী প্রায়ই রেডিওতে আমার অনুষ্ঠান শুনতো। সে আমাকে বলেছে তাকে একটি কোম্পানি নিউইয়র্কে চাকরি করার প্রস্তাব দিয়েছিল। বেতন বর্তমানের চেয়ে দ্বিগুণ। কিন্তু সে সিদ্ধান্ত নিতে পারছিল না কী করবে। সে ঘুমোতে যাওয়ার আগে নিচের কথা গুলো বলে প্রার্থণা করছিল-

আমার অবচেতন মনের সৃজনশীল বুদ্ধিমত্তা জানে আমার জন্য কোনটি সবচেয়ে ভালো হবে। এটির ঝোঁক বা প্রবণতা সর্বদাই জীবনমুখী এবং এটি আমাকে সব সময় সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে সাহায্য করে। যে জবাবটি আমার কাছে আসবে সে জন্য আমার অবচেতন মনকে অনেক ধন্যবাদ জানাই।

সেই তরুণী ঘুমপাড়ানী গানের মতো এ প্রার্থণাটি জপ করতো। একদিন সকালে তার মনে হতে থাকে যে তার চাকরিটি গ্রহণ করা ঠিক হবে না। মেয়েটি তখন সে প্রস্তাবটি প্রত্যাখ্যান করে দেয়। কয়েক মাস পর মেয়েটি জানতে পারে যে কোম্পানিটি তাকে দ্বিগুণ বেতনের প্রস্তাব দিয়েছিল সেটি এখন দেউলিয়া হয়ে গেছে।

 

ঘুম আপনাকে বিপদ থেকে রক্ষা করতে পারে

অবচেতন মন আপনাকে পরামর্শ দেয় এবং বিপদ থেকে রক্ষা করতে পারে যদি আপনি ঘুমাতে যাওয়ার আগে ঠিকঠাক প্রার্থণা করতে পারেন। বহু বছর আগে দূরপ্রাচ্যে একটি লোভনীয় চাকরি পেয়েছিলাম আমি। আমি সঠিক সিদ্ধান্ত এবং পথ নির্দেশনার জন্য প্রার্থণা করেছিলাম এই বলে- “আমার ভেতরের অসীম বুদ্ধিমত্তা সবকিছু জানে। স্বর্গীয় প্রত্যাদেশের মতো আমার কাছে সঠিক সিদ্ধান্তটি চলে আসবে। জবাবটি এলে আমি তা বুঝতে পারবো।”

আমি ঘুমাতে যাওয়ার আগে ঘুমপাড়ানি গানের মতো বারবার করে যাচ্ছিলাম প্রার্থণাটি। এক রাতে স্বপ্ন দেখি আমার এক বন্ধু আমার কাছে এসেছে এবং আমাকে একটি খবরের কাগজ দিয়ে বলছে, হেডলাইনগুলো ভালো ভাবে পড়ো! যেও না! আমার যেখানে যাওয়ার কথা ছিল সে অঞ্চলেই কয়েকদিন বাদে এরকম অরাজক অবস্থা সৃষ্টি হয়।

আপনার অবচেতন মন কিন্তু আসলে সব জানে। প্রায়ই সে আপনার সঙ্গে কথা বলে। আপনার সচেতন মন সঙ্গে সঙ্গে তা গ্রহণও করে নেয়। আপনার অবচেতন মন আপনাকে ঘুমের মধ্যে আপনাকে না করে দেয় অমুক কাজটি না করতে বা অমুক কাজটি করতে। অথবা অমুক জায়গায় না যেতে। হয়তো আপনি ঘুমের মধ্যে আপনার মা কিংবা আপনার প্রিয়জনের কণ্ঠ শুনতে পান বা তাদের দেখতে পান। আপনি হয়তো স্বপ্নটিকে পাত্তা দিলেন না, কিন্তু পরে আপনি কোন বিপদে পড়লে ঠিকই বোধদয় ঘটবে।

 

আপনার ভবিষৎ আপনার অবচেতন মনেই রয়েছে

আপনি যদি প্রার্থণা করেন তাহলে আপনার কোন বিপদ ঘটবে না। আগে থেকে কপালে কিছু লেখা থাকে না। আপনার মানসিক দৃষ্টিভঙ্গি যেভাবে আপনি চিন্তা করেন, অনুভব করেন এবং বিশ্বাস করেন- এগুলোই আপনার নিজের ভবিষৎ গড়ে তোলে। বৈজ্ঞানিক প্রার্থণার মাধ্যমে আপনি আপনার নিজের ভবিষৎ নির্ধারণ করতে পারবেন।

শান্তিতে ঘুমান এবং আনন্দ নিয়ে জেগে উঠুন। আপনি যদি অনিদ্রা রোগী হয়ে থাকেন তাহলে প্রতিদিন ঘুমোতে যাওয়ার আগে এই প্রার্থণাটি করবেন। আপনি ধীরে ধীরে চুপি চুপি বলুন- আমার পায়ের আঙুলগুলো শিথিল হয়ে গেছে। আমার গোড়ালিও শিথিল হয়ে গেছে, আমার পেটের পেশি শিথিল, আমার হৃদপিন্ড শিথিল এবং আমার ফুসফুস শিথিল। আমার হাত শিথিল, আমার চোখ শিথিল, আমার পুরো মন এবং আমার দেহ শিথিল।

আমি সবাইকে ক্ষমা করে দিচ্ছি এবং তাদের জন্য মন থেকে আমি দোয়া করছি যেন তারা সুখে শান্তিতে থাকতে পারে। আমি অনেক শান্তিতে আছি। আমি স্থির এবং প্রশান্ত। আমি নিরাপদ এবং শান্তির মধ্যে রয়েছি। আমার ভেতরে স্বর্গীয় এক আবেশ কাজ করছে। আমি জানি জীবনের উপলব্ধি এবং প্রেম আমাকে নিরাময় করে তুলছে।

আমি সকলের মঙ্গল কামনা করে প্রেমের আলখাল্লা জড়িয়ে নিয়ে ঘুমের জগতে চলে যাবো। সারারাত আমাকে ঘিরে রইবে শান্তি এবং সকালে আমি জেগে উঠবো বুকভরা ভালোবাসা এবং প্রেম নিয়ে। ভালোবাসার একটি বৃত্ত আমাকে ঘিরে ধরেছে। আমি কাউকে ভয় পাই না। আমি শান্তিতে ঘুমাই, আমি আনন্দ নিয়ে জেগে উঠি।