আইপিএল হবে বিশ্বের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ দামি প্রতিযোগিতা, জানুন কিভাবে

আইপিএলের স’ম্প্রচার সত্ত্বের জন্য দৌড় শুরু হয়ে গেছে। ক্রিকেট দুনিয়ার সবচেয়ে লো’ভনীয় প্রতিযোগিতার সঙ্গে জড়িত থাকার দুটি উপায় আছে। একটি সরাসরি স’ম্প্রচার সত্ত্ব কেনা, আরেকটি হলো অনলাইন স্ট্রিমিং সত্ত্ব কেনা। শুধু স্ট্রি’মিং সত্ত্বের জ’ন্যই লড়াই করবে ওয়াল্ট ডি’জনি, রিলায়েন্স ও সনির মতো প্র’তিষ্ঠান।

পাঁচ বছরের জন্য আইপিএলের স’ম্প্রচার সত্ত্ব বুঝে পাওয়া মানে যে আগামী পাঁচ বছর আয় নিয়ে নির্ভার থাকা। ও’দিকে নতুন পাঁচ বছরের চুক্তি থেকে বিসিসিআই যা আয় করার আশা করছে, তা’তে দামের দিক থেকে বিশ্বের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ আ’য়ের টুর্নামেন্ট হয়ে যাবে আইপিএল। আ’ইপিএল সবশেষ চুক্তিতে সম্প্রচার স্বত্ব বি’ক্রি করে যা আ’য় করেছিল, ম্যাচপ্রতি আয়ে সেটা বিশ্বে চতুর্থ স’র্বোচ্চ ছিল। শীর্ষ তিনে যু’ক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের তিনটি লিগ—ন্যাশনাল ফুটবল লিগ(এনএফএল), ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ (ইপিএল) এবং মেজর লিগ বেসবল (এমএলবি)।

ম্যাচ প্রতি আয় বাড়ছে আইপিএল এর

প্রথমে রা’গবি, দুইয়ে ফুটবল আর তিনে বেসবল। জনপ্রিয়তায় বি’শ্বজুড়ে ফুটবলের চেয়ে পিছিয়ে থাকলেও নতুন চুক্তিতে ফু’টবলকে হটিয়ে দুইয়ে উঠে যাবে ক্রি’কেটের এই টুর্নামেন্ট। আইপিএলের স্ট্রি’মিং সম্প্র’চার নিয়ে আগ্রহ দেখিয়েছিল চার-পাঁ’চটি প্রতিষ্ঠান। কিন্তু শেষ মুহূর্তে নিলামে থাকবে না বলে জানিয়ে দিয়েছে ই-কমার্স জায়ান্ট আমাজন।

কিন্তু রি’লায়েন্সের ভুট, ডিজনির হটস্টার এবং জিও সনির ওটিটি প্ল্যাটফর্ম দুটি এই সম্প্রচার পেতে লড়বে। অ’নেকের তো ধারণা টিভি সম্প্রচার সত্ত্বের চেয়ে স্ট্রিমিং সম্প্রচার সত্ত্ব থেকেই এবার বেশি অ’র্থ পাবে। তবে ভা’রতীয় ক্রিকে’ট বোর্ডের (বিসিসিআই) সচিব জয় শা’হর দাবি, নিলামের যে ভিত্তি মূল্য সেটি পেলেই ম্যাচপ্রতি আয়ে দুইয়ে চলে যাবে আইপিএল। ই’ন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে জয় শাহ বলেন, ‘বর্তমানে একটি এনএফএল ম্যাচে সম্প্রচারকের খরচ হয় ১ কোটি ৭০ লাখ ডলার, যে’টা যেকোনো ক্রীড়া লিগে সর্বোচ্চ। এরপর আছে ই’পিএল, সেখানে ব্যয় হয় ১ কোটি ১০ লাখ।

নতুন দল বিক্রি করে যা পেয়েছে

এম’বিএলের খ’রচও এর কাছাকাছি। গ’ত পাঁচ বছরের চক্রে আমরা এক আ’ইপিএল ম্যাচ থেকে ৯০ লা’খ ডলার পেয়েছি। এ’বার ন্যূনতম ভিত্তি মূল্য অনুযায়ী প্রতি আইপিএল ম্যাচের জন্য বি’সিসিআই ১ কোটি ২০ লাখ ডলার পাবে। এটা বি’শ্বমঞ্চে ভারতীয় ক্রিকেটের জন্য বড় এক লাফ। আমরা তখন শুধু এনএফএলের পেছনে থাকব।’

২০১৭ সালে স্টার ইন্ডিয়া আইপিএলের পাঁচ বছরের সম্প্রচার সত্ত্বের জ’ন্য ৩০০ কো’টি ডলার খ’রচ করেছিল। ২’টি দল বেড়ে ব’র্তমানে আইপিএলে ১০টি দল। ফলে ম্যাচ সংখ্যা বেড়েছে। এবারের নিলামে আরও অনেক বেশি আয়ের প্রত্যাশা করছে বিসিসিআই।

আইপিএলের প্রতি যে ব্যবসায়ী প্র’তিষ্ঠানগুলোর আগ্রহ বাড়ছে, সে’টি বোঝা গেছে এ বছরই। ন’তুন দুটি দ’লের মালিকানা বিক্রি করে বোর্ড এবার ১৭০ কোটি ডলার পেয়েছে! এর মধ্যে ল’ক্ষ্‌ণৌ সুপার জায়ান্টসের মূল্য ভিত্তি মূল্যের আড়াই গুণ বেশি ছিল। এবার আইপিএলের সম্প্রচার সত্ত্বের নিলাম অনলাইনে হবে।

জয় শাহ কি বলেছেন এই ব্যাপারে?

জয় শাহর দাবি, এতে নিলামে অংশগ্রহণকারী পুরো প্র’ক্রিয়া যে স্বচ্ছ, এ ব্যা’পারে নিশ্চিত হ’বেন। ত’বে কে কত দর হাঁকাচ্ছেন, সেটা তখনই জানা যাবে না। নিলাম শে’ষেই বিজয়ীর নাম জানা যাবে। এতে পু’রো ব্যা’পারটির গ্রহণযোগ্যতা বাড়বে বলে ধার’ণা তাঁর। আ’ইপিএলের সম্প্রচার সত্ত্বকে চারটি ভাগে বিভক্ত করা হয়েছে। প্যা’কেজ এ—তে আ’ছে ভারতীয় উপম’হাদেশের টেলিভিশন, প্যাকেজ বি—তে থাকছে ডিজিটাল, প্যাকেজ সি—তে থাকছে গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচের বা’ড়তি সং’যোজন এবং প্যাকেজ ডি—তে থা’কবে উপমহাদেশের বাইরের সত্ত্ব।

প্যাকেজ—সিতে শনি ও রো’ববারের ম্যাচ, প্লে-অফ ও ফাইনালের ম্যাচ থাকবে। এবার স্ট্রিমিং সত্ত্বেই বেশি নজর বিসিসিআইয়ের, ‘২০২৪ সাল নাগাদ ভারতের ৯০ কোটি মানুষ ই’ন্টারনেট ব্যবহার করবে। এ কা’রণেই ক্রিকেটের প্রচারে ডি’জিটাল সত্ত্ব খুবই গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে।’ ম্যাচপ্রতি আয়ে দুইয়ে উঠে গেলেও টুর্নামেন্টজুড়ে সম্প্র’চার আয়ে অবশ্য আইপি’এল অনেক পিছিয়ে থাকবে।

কারণ, আইপিএল ’মাত্র দুই মাস খে’লা হয়। ওদিকে ফুট’বল, রাগবি বা বেসবল বছরজুড়ে হয়। এ ক্ষে’ত্রে যুক্তরাষ্ট্রের দুই লি’গের ধারেকাছে নেই কেউ। এনএফএলের স’ম্প্রচার স’ত্ত্বের মূল্য ৪ হা’জার ৩০০ কোটি ড’লার। আর এ’নবিএর ক্ষেত্রে সেটা ২ হা’জার ৩০০ কোটি।

Add a Comment

Your email address will not be published.