অনলাইন থেকে মাসে কত টাকা আয় করতে পারবেন? কিভাবে অনলাইন থেকে ইনকাম করা যায়

অনলাইন থেকে মাসে কত টাকা আয় করা যায়? আজকের এই পোস্ট থেকে জানতে পারবেন অনলাইন থেকে প্রতি মাসে কত টাকা আয় করা যায় সে স’ম্পর্কে। আরো জানবেন অনলাইন থেকে কিভাবে আয় করা যায় সে সম্পর্কে। অনলাইন থেকে ইনকাম বর্তমান সময়ের অন্যতম জনপ্রিয় একটি বিষয়। অনেক দিন ধরে বাংলাদেশের মানুষ অনলাইন থেকে ল’ক্ষ ল’ক্ষ টাকা ইনকাম করে আ’সছে। আপনি আ’জকের এই পোস্টের মাধ্যমে অনলাইন থেকে ই’নকাম করার উপায় এবং অ’নলাইন থেকে প্র’তি মাসে কত টাকা আয় করা যায় সে স’ম্পর্কে জানতে পারবেন।

একটি কথা মনে রাখবেন অনলাইনে ইনকাম বা ফ্রি’ল্যান্সিং বর্তমানের চাকরি গুলোর চেয়ে কোনো দিকে দিয়ে পি’ছিয়ে নেই। অনলাইনে কাজ করার মাধ্যমে ব’র্তমানে বেশি টাকা ইনকাম করা সম্ভব। তবে একটি কথা মাথা’য় রাখবেন একজন ফ্রি’ল্যান্সার এর আয় বিভিন্ন বিষয়ের উপর নির্ভর করে থাকে। এই আর্টিকেল থেকে এই সব বিষয় সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারবেন। এই আ’র্টিকেল পড়া শেষে আপনি অনলাইন থেকে ইনকাম করার ব্যাপারে বিস্তারিত একটি ধা’রণা পাবেন। তাহলে চলুন শুরু করা যাক!

 

অনলাইন থেকে মা’সে কত টা’কা আয় ক’রার আগে

অনলাইন থেকে আয় ক’রার আগে কিছু বিষয় স’ম্পর্কে আপনাকে জানতে হবে। অনলাইনে প্রতি মাসে কত টাকা ই’নকাম করা যায় সে স’ম্পর্কে জানার পূ’র্বে অনলাইনে ই’নকামের পরিমাণ যেসব বিষয়ের উপর নি’র্ভর করে থাকে সেগুলো স’ম্পর্কে জেনে নিতে হবে। কারন সে গুলো স’ম্পর্কে না জানলে আপনি অনলাইন থে’কে আয়ের সঠিক দি’কনির্দেশনা পাবেন না। চ’লুন অনলাইনে থেকে ই’নকাম বা ফ্রি’ল্যান্সিং করে ই’নকাম করার পরিমাণ নি’র্ভর করে যে’সব বি’ষয়ের উপর সেগুলো এ’কনজরে জেনে নেই।

অ’ভিজ্ঞতা: আমরা জানি যেকোনো কাজের ক্ষেত্রে অভিজ্ঞতা একটি অতি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। কোন কাজে যে যত বেশী অভিজ্ঞ সে তত বেশি সে কাজ সম্পর্কে এক্সপার্ট। বর্তমানে যেকোন চাক’রির ক্ষেত্রেও অভিজ্ঞতার বিষয়টিকে গুরুত্বের সাথে দেখা হয়। ফ্রিল্যান্সিং বা অনলাইনে আয়ে ক্ষেত্রেও তেমনি ভাবে অভিজ্ঞতার বিষয়টিকে অনেক গুরুত্ব সহকারে বিবেচনা করা হয়। একজন ফ্রিল্যান্সার কোনো কাজে যত বেশি অভিজ্ঞ থাকে, সে উক্ত কাজের জন্য তত বেশী ইনকাম করতে পারে। তাই ফ্রিল্যান্সিং এর ক্ষেত্রে অভিজ্ঞতার মূল্য অনেক।

দ’ক্ষতাঃ যেকোন কাজেই দক্ষতা একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। কোন কাজ ভালো ভাবে করতে হলে সে উক্ত কাজ সম্পর্কে দক্ষ হতে হবে। দক্ষতা ছাড়া কোন কাজই সঠিক ভাবে করা সম্ভব হয় না। আপনি ফ্রিল্যান্সিং বা অ’নলাইনে ইনকাম করতে হলে আপনাকে প্রথমে যে কোন একটি কাজ সম্পর্কে দক্ষতা অর্জন করতে হবে। তারপর সে কাজটি ফ্রিল্যান্সিং মার্কেট প্লেসে করতে হবে। একটি কথা মনে রাখবেন একজন ফ্রিল্যান্সারের দক্ষতার উপর তার ইনকামের পরিমাণ নির্ভর করে থাকে। একজন ফ্রিল্যান্সার যদি দক্ষ হয়ে থাকে তাহলে তার আয়ের পরিমানও বেশি হবে। সে বেশি আয়ের কাজ করতে পারবে, আবার তার কাজ গুলোও অনেক দ্রু’ত শেষ হয়ে যাবে।

শি’ক্ষা ও প্র’শিক্ষণ থাকতে হবে: শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ ছাড়া কো’ন কাজই ভালো ভাবে সম্পন্ন হয় না। ফ্রিল্যান্সিং করার পূর্বে ভালো ভাবে কোন একটি বিষয়ের উপর প্রশিক্ষণ নিতে হবে। সঠিক শিক্ষা ও প্রশিক্ষণই আপনাকে এনে দিতে পারে আপনার কাঙ্ক্ষিত সাফল্য। তাই ফ্রিল্যান্সিং শুরু করার পূর্বে আপনার প্রয়োজন হবে সঠিক শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ। আরো একটি বিষয় হচ্ছে অনলাইনে ইনকামের অনেক ক্ষেত্রে শিক্ষাগত যোগ্যতা অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

ক্লা’য়েন্টের রি’ভিউ: অনলাইনে ইনকাম বা ফ্রিল্যান্সিং এর ক্ষেত্রে ক্লায়েন্টের রিভিও একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। মনে রাখবেন আপনার ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ারে এই ক্লায়েন্টের রিভিও অনেক কাজে আসবে। যে ফ্রিল্যান্সার যত বেশি ভালো রিভিও পায় সে ফ্রিল্যান্সার তত বেশি কাজ পেয়ে থাকে। আপনার প্রোফাইলে যখন অনেক গুলো ইতিবাচক রিভিও থাকবে তখন আপনার প্রতি আপনার ক্লায়েন্টের বিশ্বসতা অনেক বেশী বেড়ে যায়।

কা’জের ধ’রণ কেমন: অনলাইন থেকে টাকা ইনকামের অন্যতম একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে কাজের ধরণ। কাজের ধরণ অনুযায়ী অনলাইনে টাকা ইনকামের বিষয়টি নির্ভর করে থাকে। একজন ফ্রিল্যান্সার একেক কাজের জন্য একেক রকম পেমেন্ট পেয়ে থাকে। একটি কথা মনে রাখবেন কাজের ধরণ অনুযায়ী ফ্রিল্যান্সাররা বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে কাজ পেয়ে থাকে এবং সেই কাজের জন্য পেমেন্ট পেয়ে থাকে।

কাজের প’রিমাণ কেমন: অনলাইনে আপনি কত টাকা আয় করবেন সেটা নির্ভর করে আপনার কাজের পরিমানের উপর। কাজ বেশী হলে ইনকামটাও আপনার বেশি হবে। কাজ বেশী না হলে ইনকামটাও আপনার তত বেশী হবে না। তাই অনলাইনে টাকা আয় করতে হলে আপনার কাজের পরিমান হতে হবে অনেক বেশী। তত কাজের মান অনুযায়ী অনেক সময় অল্প কাজেও বেশী টাক ইনকাম করা যায়।

 

অনলাইন থেকে প্রতি মাসে কত টাকা আয় করা সম্ভব জেনে নিন

এবার আমরা জানবো অনলাইন থেকে প্রতি মাসে কত টাকা প’র্যন্ত আয় করা যায় সে স’ম্পর্কে। আমরা আগেই জেনেছি অন’লাইন থেকে টাকা আয়ের বিষয়টা নির্ভর করছে আপনার সঠিক দক্ষতা ও কাজের পরিমান এবং ধরণ অনুযায়ী। আপনার কাজের ধরণ যদি ভালো মানে হয় আপনি আয় করবেন অনেক বেশি। আর আপনার কাজের ধরণ যাদি নি’ম্ন মানের হয়ে থাকে তাহলে আপনি আয়ও করবেন অনেক কম। তাই অনলাইনে আপনি কত টাকা আয় করবেন সেটা নির্ভর করছে আপনার উপর।

অনেক ফ্রিল্যান্সার আছে যারা কিনা সঠিক দ’ক্ষতা থাকা সত্ত্বেও কা’ঙ্ক্ষিত টাকা ইনকাম করতে পারে না। কথা বলা যাক সবচেয়ে কমন ফ্রি’ল্যান্সিং কাজগুলো যারা করে থাকে তাদের মাসিক ইনকামের উপর। একজন ফ্রি’ল্যান্সার যে কিনা রাইটিং নিয়ে কাজ করে থাকে সে ঘন্টায় ৩০ থেকে ৪০ মা’র্কিন ডলার প’র্যন্ত আয় করতে পারে।

একজন ফ্রি’ল্যান্সার এডিটর একজন রা’ইটারের মতো প্রায় একই অংকের অর্থ আয় করে থাকেন। অনলাইন জগতে ফ্রিল্যান্সার প্রো’গ্রামার এর চাহিদা অনেক বেশি। এই চাহিদা বেশি হওয়ার কারণে ফ্রিল্যান্স প্রোগ্রামারগণ ঘন্টাপ্রতি অনেক টাকা পর্যন্ত আয় করে থাকেন। একজন দক্ষ ফ্রিল্যান্সার প্রোগ্রামার, ওয়েব ডেভলপার ও অ্যাপ ডেভলপার প্র’তি ঘন্টায় ৫০ থেকে ৮০ডলার পর্যন্ত ইনকাম করে থাকেন।

একজন দক্ষ গ্রা’ফিক ডি’জাইনার ফ্রিল্যান্সিং করে প্রতি ঘ’ন্টায় ৩০ থেকে ৫০ ডলার পর্যন্ত ইনকাম করতে পারে। একইভাবে অনলাইন মার্কেটার, ট্রান্সক্রাইবার ও ভিডিও এডিটরগণ প্রায় একই অংকের আয় করতে পারেন। আবার ডাটা এ’নালিস্ট এর মত জটিল কাজের ক্ষেত্রে ফ্রিল্যান্সারগণ অনলাইন থেকে অ’ধিক পরি’মান টাকা আয় করতে পারেন। সুতরাং দেখা যা’চ্ছে যে, কাজের জ’টিলতার উপরও নি’র্ভর করে থাকে আপনি অনলাইনে কত টাকা ইনকাম করবেন সেটা। কাজের জটিলতার উপরে নির্ভর করে একজন ফ্রিল্যান্সার বিভিন্ন রকম আয় করে থাকে।

আমাদের দে’শে এমন অনেক ফ্রি’ল্যান্সারই আছে যারা কি’না মাসে ক’য়েক ল’ক্ষ টা’কা প’র্যন্ত ই’নকাম কর’ছে অ’নলাইন থেকে। আবার অনেক ফ্রি’ল্যান্সার আছে যারা কিনা মা’সে দশ বা’রো হাজার টাকাও ই’নকাম করতে পারছে না। তাই বলা যায় যে, একজন ফ্রি’ল্যান্সারে দ’ক্ষতা ও কা’জের ধ’রণ অ’নুযায়ী তার আয়ের বিষয়টা নি’র্ভর করে থাকে।

 

ফ্রিল্যান্সিং করে ইনকাম করার পরিসংখ্যান জানুন

এবার আমরা ফ্রি’ল্যান্সিং করে ইনকাম করার পরিসংখ্যান স’ম্পর্কে জানবো। ফ্রিল্যান্সিং প্ল্যাটফর্ম আপওয়ার্ক যা সারা বিশ্বে অনেক জনপ্রিয়, তার তথ্যমতে ৬০শতাংশ ফ্রি’ল্যান্সার চাকরি ছাড়ার পর তাদের পূ’র্বের ফুল-টাইম চাকরির চেয়ে বেশি ইনকাম করে থাকেন। ২০২০ সালের একটি রিসার্চের তথ্যমতে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ফ্রিল্যান্সারগণ ঘন্টায় গড়ে ২০ ডলার করে ইনকাম করে থাকেন।

একই প’রিসংখ্যানে দেখা যায় যে ওয়েব ডে’ভলপার বা মোবাইল ডেভলপমেন্ট, একাউন্টিং ও অন্যান স্কিলড সার্ভিস এর ক্ষেত্রে ফ্রিল্যন্সারগণ ২৮ ডলার পর্যন্ত ইনকাম করে থাকেন। এই রেট হিসাব করলে দেখা যায় যে, যু’ক্তরাষ্ট্রের ফ্রিল্যান্সারগণ প্রায় ৭০% এর অধিক আয় করেন অন্যান্য কর্মজীবী থেকে।

একটা ক’থা মনে রাখবেন, আপনি একজন নতুন ফ্রি’ল্যান্সার হোন বা একজন দক্ষ ফ্রি’ল্যান্সার হোন উভয় ক্ষেত্রেই আপনি অ’নলাইন থেকে টাকা ইনকাম করে ইকোনোমিতে ভূ’মিকা রেখে ভালো অংকের অর্থ আয় করতে পারবেন। যতই দিন যা’চ্ছে কো’ম্পানিগুলো ফ্রি’ল্যান্সারদের সাথে কাজ করতে অনেক ই’চ্ছা পো’ষণ করছে। আর এই কারনেই ফ্রি’ল্যান্সার এর চাহিদা দিন দিন বেড়েই চলেছে।

 

অনলাইনে ইনকামের ভ’বিষৎ কে’মন?

এবার আমরা অনলাইনে ইনকামের ভবিষৎ সম্পর্কে জানবো। অনলাইনে ইনকামের ভবিষৎ ব’র্তমানে অন্যান্য পেশার চেয়ে কম এগিয়ে নেই। একজন ফুল-টাইম ফ্রিল্যান্সার হওয়ার ক্ষেত্রে অ’নেক চ্যালেঞ্জ রয়েছে। অনেক চ্যা’লেন্জ থাকলেও বিভিন্ন প’রিসংখ্যান ঘেঁটে বু’ঝা যায় ‍দিন দিন ক্যারিয়ার হিসেবে ফ্রিল্যান্সিং আরো জনপ্রিয় হয়ে উ’ঠছে সবার মাঝে। যতই দিন যা’চ্ছে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ফ্রিল্যান্সার এর সাহায্যে তাদের কাজগুলো করানোর ব্যাপারে আরো আ’গ্রহী হয়ে উঠছে। আর এই জ’ন্যই আশা করা যায় ফ্রি’ল্যান্সারদের জন্য দিন দিন কাজের চাহিদা বেড়েই চলেছে।

বাড়তি আয় করা হোক কিংবা ফুল-টাইম জবের বিকল্প হোক। পূর্বের চেয়ে অনেক বেশি দক্ষ পেশাদারগণ ফ্রিল্যন্সিং করছেন এখন। একটি তথ্যমতে, ৭১% ফ্রি’ল্যান্সারগণ যেকোনো স্থা’ন থেকে তাদের কাজের স্বা’ধীনতা উপভোগ করে থাকেন। উল্লেখিত আ’লোচনা থেকে আশা করা যায় যে, ফ্রিল্যান্সিং মার্কেট ভবিষ্যতে আগের চেয়ে আরো অনেক বড় হবে। অ’র্থাৎ দ’ক্ষতার ও চাহিদা বাড়ার সাথে সাথে ফ্রি’ল্যান্সারদের আর কাজের তেমন একটা অভাব হবেনা। তারা সব সময়ই কাজ পেয়ে যাবে। তাদের ইনকাম নিয়ে বাড়তি কোন চিন্তা করতে হবে না।

 

আশা করছি আপনি অ’নলাইন থেকে মাসে কত টাকা আয় করতে পারবেন? কি’ভাবে অনলাইন থেকে ইনকাম করা যায় সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পেরেছেন। অনলাইন থেকে মাসে কত টাকা আয় করতে পারবেন? কিভাবে অ’নলাইন থেকে ইনকাম করা যায় সম্পর্কে আমার লেখাটি পড়ার জন্য আপনাকে অ’সংখ্য ধন্যবাদ। ভালো থাকবেন।