অনলাইনে কাজ করে টাকা ইনকাম | সহজ পদ্ধতিতে ইন্টারনেট থেকে আয়

বর্তমান সময়ে তথ্য প্র’যুক্তির উন্নয়নের ফলে ইন্টারনেট ব্যবস্থার ব্যাপক উ’ন্নতি সাধিত হয়েছে। তারই প’রিপ্রেক্ষিতে ধীরে ধীরে ইন্টারনেটে বি’ভিন্ন ধরনের অনলাইন জব এর সংখ্যা ক্র’মাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে। আর এইভাবে আমরা অনেকেই অন’লাইনের এই সকল জবে নিজেকে আ’ত্মনিয়োগ করছি। বিশেষ করে কোভিড-১৯ এর পর থেকে সবাই অনলাইন জবের দিকে ঝুকছে।

বর্ত’মানে অনেকেই ইন্টারনেটের মাধ্যমে অনলাইন জ’ব করছে এবং ইন্টারনেটের মা’ধ্যমে ঘরে বসে নিজেদের আর্থিক অবস্থার স্বচ্ছলতা ফিরিয়ে নিয়ে আ’সছে। যারা লেখা পড়া শেষ করা সত্বেও কা’ঙ্খিত চাকরি পাচ্ছে না তারা সেই পরিস্থিতিতে অনলাইন জবে নি’জেদেরকে মেলে ধরতে পারছেন। সঠিক দক্ষ’তাকে কাজে লাগিয়ে অনেকে অনলাইন জব করার মাধ্যমে মাসে লক্ষাধিক টাকা আয় করছে।

আজকে আমি এই পো’স্টের মাধ্যমে অনলাইন জব কি, অনলাইন জব করতে কি কি প্রয়োজন এবং কিভাবে অনলাইন জব করে সেই সম্পর্কিত বিভিন্ন ধ’রনের বিষয় নিয়ে আলোচনা করব। অনলাইন জ’ব সম্প’র্কে পূর্ণা’ঙ্গভাবে জানার জন্য অবশ্যই সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি ম’নোযোগ সহকারে পড়তে হবে। তাহলে চলুন প্রথমে জেনে নেওয়া যাক অনলাইন জব কি?

 

অনলাইনে কাজ করে টাকা ইনকাম করার উপায়

ইন্টারনেট ব্যবহার করে যেকোনো ধরনের জব করাকেই অনলাইন জব বলা হয়। সহজ ভাষায় এভাবে বলা যায় যে, ইন্টারনেট প্রযুক্তির সুযোগকে কাজে লাগিয়ে বিভিন্ন ডি’ভাইস, মোবাইল, ইন্টারনেট এবং ক’ম্পিউটারের মাধ্যমে দে’শি-বিদেশি বিভিন্ন কো’ম্পানির একক অধীনে কাজ করাকেই অনলাইন জব বলে।

অনলাইন জব গুলো বিভিন্ন রকম হতে পারে। যেমন—চু’ক্তিভিত্তিক অনলাইন জব,  প্র’জেক্ট ভিত্তিক অনলাইন জব, মা’স ভিত্তিক অনলাইন জব।

অনেকের সু’বিধামত এই ধরনের জব গুলো অ’নলাইনের মাধ্যমে করে থাকে। অনলাইনের মাধ্যমে ছোট-বড় যে কোনো কাজই করুন না কেন যেসব কাজের মাধ্যমে অ’নলাইন থেকে টাকা ইনকাম করা যাই সে’গুলোকেই অনলাইন জব বলে। ফ্রিল্যান্সিং পেশাকেও অনলাইন জব এর মধ্যে ধরা হয়ে থাকে। বর্তমান সময়ে অনেকে অ’নলাইন জব করার মাধ্যমে প্রতিমাসে লক্ষ লক্ষ টাকা ইনকাম করছে। অন’লাইনে কাজের জন্য সঠিক দ’ক্ষতা থাকলে যে কেউ অনলাইনে জব করে একটি স্মার্ট এমাউন্ট আয় করতে পারবে। তাহলে চলুন এবার জেনে নেওয়া যাক

বর্তমানে ইন্টারনেটের মাধ্যমে ঘরে বসে অনলাইন জব করে টাকা ই’নকাম করা আগের চেয়ে অনেক স’হজতর হয়ে গিয়েছে। নির্দিষ্ট কোন কাজের উপরে সঠিক দ’ক্ষতা থাকলে যে কেউ অনলাইনে জব করে অর্থ উপার্জন করতে পারবে।

অনলাইনে জব করার জন্য কিছু উপাদানের প্রয়োজন হয়ে থাকে। যেমন— স্মার্ট ফোন, ল্যাপটপ বা ডেস্কটপ, ইন্টারনেট কানেকশন।

যারা অনলাইনে জব করতে চান তা’রা এই তিনটি জিনিস ব্যবহার করার মাধ্যমে খুব সহজেই অনলাইনে যে কোন ধরনের কাজ করতে পারবেন। বর্তমানে অনেকে স্মার্ট’ফোনের মাধ্যমে অন’লাইনে বিভিন্ন ধ’রনের কাজ খুব সহজেই সম্পূর্ণ করছেন। তবে যারা ফ্রি’ল্যান্সিং জব করছে তাদের স্মার্টফোনের পাশা’পাশি কম্পিউটার বা ল্যাপটপ থাকাটা দরকার। তার সাথে প্রয়োজন হবে ইন্টারনেট কানেকশনের। কেন না অনলাইনে অনেক কাজ রয়েছে যে কা’জগুলো শুধুমাত্র স্মা’র্ট ফোন ব্যবহার করে করা সম্ভব হয় না।

তবে অনলাইনে ছোটখাটো জব গুলো খুব সহজেই মোবাইলের মা’ধ্যমে সম্পন্ন করা যায়। এমন অনেকে আছেন যারা শুধুমাত্র স্মার্টফোন ব্যবহার ক’রেই অনলাইনে বিভিন্ন ধরনের জব করে মা’সে লাখ টাকা ইনকাম করছেন। যার কারণে অনলাইনে জবটা এখন অনেকের কাছে আস্তে আস্তে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে।

 

অনলাইনে জব পাওয়ার নিয়ম

অনলাইন থেকে আয় করার প্রশ্নটিই আসার আগে অ’নেকে এই প্রশ্নটা করে থাকেন যে অনলাইন জব কিভাবে করব? দেখুন ব’র্তমানে অনলাইনে অ’সংখ্য কাজ রয়েছে এবং যার যার কোয়ালিটি ও কাজের অ’ভীজ্ঞতা অনুসারে ভি’ন্ন ভি’ন্ন ধরনের কাজ অনলাইনের মাধ্যমে করে থাকেন।

তাই অ’নলাইন জব কিভাবে করব এটা বলার আগে আপ’নাদের আগে সিলেক্ট করতে হবে যে, আপনারা অনলাইনে কোন ধরনের কা’জ করতে চান। ধরুন আপনি অনলাইনে ফ্রি’ল্যান্সিং করতে চান। তাহলে ফ্রি’ল্যান্সিংয়ের অনেক পার্ট আছে আপনাকে এর মধ্যে যে কোনো একটি সিলেক্ট করতে হবে। যেমন— গ্রা’ফিক্স ডিজাইন, ও’য়েব ডেভে’লপমেন্ট, ডি’জিটাল মার্কেটিং, কনটেন্ট রাইটিং ইত্যাদি।

আপনি যদি গ্রা’ফিক্স ডিজাইন নিয়ে অনলাইনে কাজ শুরু করতে চান তাহলে আগে আপনাকে গ্রাফিক্স ডিজাইন সম্পর্কে ভালোভাবে ধারণা নিতে হবে। তার’পর আপনাকে কোন প্রতিষ্ঠান থেকে গ্রা’ফিক্স ডিজাইনের কোর্সটি ভালোভাবে করে নিতে হবে। তারপরে আপনি যখন গ্রা’ফিক্স ডিজাইনের কাজটি সম্পূ’র্ণভাবে শিখে যাবেন তখন আপনি চাইলে ই’ন্টারন্যাশনাল অনেক মার্কেটপ্লেস রয়েছে সেই মার্কেটপ্লেসগুলোতে জবের জন্য এ’প্লাই করতে পারেন।

আপনি যদি একজন ইউটিউবার হয়ে অনলাইন জব কর’তে চান তাহলে আপনাকে একটি ই’উটিউব চ্যানেল তৈরি করতে হবে এবং ভিডিও এডিটিং খুব ভালোভাবে রপ্ত করে ফেলতে হবে। পরবর্তীতে যখন আপনার ইউটিউব চ্যানেলটি বড় হয়ে যাবে তখন অনেক উপায় অ’বলম্বন করে এখান থেকে আয় করতে পারবেন।

তাই অনলাইন জব শুরু করার আগে কোন ধ’রনের কাজ আপনি অনলাইনে করতে চান সেটা আগে সিলেক্ট করে নিয়ে সেইভাবে সামনে এগিয়ে যেতে হবে। নি’র্দিষ্ট কোন কাজে আপনি যদি খুবই দ’ক্ষতা স’ম্পন্ন হয়ে থা’কেন তাহলে খুব সহজেই অনলাইন জব করার মাধ্যমে ভালো অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।

সহজ উপায়ে ফেসবুক থেকে টাকা আয় করুন

 

ঘরে বসে অনলাইন কাজের পদ্ধতি

আমাদের মধ্যে অনেকেই আছেন যারা ঘরে বসে পা’র্টটাইম কিছু অনলাইন জব খুঁ’জে থাকেন। হ্যাঁ অনলাইনে এমন অসংখ্য জব রয়েছে যে জব গুলো আপনারা যেকোনো কাজের পা’শাপাশি করতে পারবেন। এই কা’জগুলো করার মাধ্যমে Part টাইমে আপনারা ভালো অর্থ উ’পার্জনও করতে পারবেন।নি’চে ঘরে বসে পা’র্ট টাইম অনলাইন জব করার সেরা সেরা ১০ টি উপায় দেওয়া হল—

০১। কপি টাইপিং জব
এখানে কপি জব বলতে অন্যের ব্লগ বা ওয়েবসাইট থেকে আ’র্টিকেল কপি করাকে বুঝাচ্ছে না। সাধারণত এমন কিছু বই বা বড় বড় উ’পন্যাস থাকে যেগুলো পুরনো হয়ে যায়। তখন সেগু’লো পুনরায় নতুন করে বাধাই করা প্রয়োজন হয়। এ ক্ষেত্রে পুরনো বই পুস্ত’কের লেখাগুলো পুনরায় টাইপ করার প্রয়োজন হয়।

এ ক্ষেত্রে আপনার যদি দ্রুত গতিতে টাইপ করার দক্ষতা থাকে তাহলে আপনি বিভিন্ন ধরনের ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস থেকে সহজে কপি টাইপিং জব পেয়ে যাবেন। যদিও আপনার কাছে বিষয়টি খুব ছোট মনে হতে পারে তবুও আমি বলব আপনার যদি অন্য কোন দ’ক্ষতা না থাকে তাহলে আপনি এ ধ’রনের কপি টাইপিং জব করে শুরুতে ভালো মানের টাকা ইনকাম করতে পারনে।

কিভাবে আপনি এ ধরনের কাজ খোঁজে পাবে সে বিষয়ে বিস্তারিত জা’নতে চাইলে আমাদের ব্লগের ফ্রিল্যান্সিং সংক্রান্ত পোস্টটি পড়তে পারেন। কারন ঐ পোস্টে আমরা ফ্রি’ল্যান্সিং মার্কেটে অ’নলাইন জব পাওয়ার উপায় সহজ ফ্রিল্যান্সিং নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেছি। কাজেই আপ’নার যদি টাইপিং দক্ষতা থাকে তাহলে আপনি কপি টা’ইপিং জব করতে পারবেন।

ডা’টা এন্ট্রির কাজও প্রায় কপি টাইপিং কাজের মতন। এখানেও কাজ করার জন্য আপনার টাইপিং দক্ষতা থাকতে হবে। আপনার টাইপিং স্পিড যত বেশি থাকবে আপনি তত বেশী ডাটা এন্ট্রি করতে পারবেন এবং তত বেশী টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

আপনার যদি কম্পিউটার সম্পর্কে বেসিক নলেজ থাকে তাহলে আপনি খুব অনায়াসে ডাটা এন্ট্রি সফটয়্যার গুলোর কাজ আয়ত্ম করে নিতে পারবেন। সাধারণত ডাটা এন্ট্রির কাজ এক/দুই দিনের মধ্যে শিখে নেওয়া যায়। ডাটা এন্ট্রি জব পাওয়ার জন্য আপনার নিচের স্কিলগুলো থাকতে হবে— একটি ক’ম্পিউটার, দ্রুত গতিরর ই’ন্টারনেট, দ্রুত টাইপিং করার দ’ক্ষতা, কাজ করার ও বু’ঝার মত ম’নযোগ।

ফেসবুক বিজ্ঞাপন কাজ করে আয়

ফেসবুক এখন ব্যবসা বাণিজ্য থেকে শু’রু করে প্রায় সকল ক্ষেত্রে আমাদের জীবনের সাথে জ’ড়িয়ে আছে। কাজেই এখানে কাজ করা বা ফেসবুকে যে কোন অ’নলাইন জব পাওয়া এখন খুবই সহজ। বিশেষ করে এখন ছোট খাটো প্রতিষ্ঠান থেকে শুরু করে বিশাল বড় বড় কোম্পানি ফেসবুকের মাধ্যমে বি’জ্ঞান দিয়ে প্রোডাক্ট বা সা’র্ভিসের প্রচার করতে পছন্দ করে।

এ ক্ষেত্রে আপনি যদি একজন ফেসবুক বি’’জ্ঞাপন স্পে’শালিষ্ট হতে পারেন তাহলে অনলাইন জব করে লাখ টাকা ইনকাম করা আপনার জন্য কোন ব্যাপার হবে না। আর ফেস’বুক বিজ্ঞাপন স্পেশালিষ্ট হওয়ার জন্য আপনাকে বিশেষ কিছু করতে হবে না। কোন প্রতিষ্ঠান থেকে বা অনলাইন থেকে বিষয়টি মাত্র এক মাসের মধ্যে রপ্ত করে নিতে পারবেন।

সাধারণত প্রত্যেক কোম্পানি যখন ফেসবুকে বি’জ্ঞাপন দেয় তখন কোম্পানি একজন ফেসবুক বি’জ্ঞাপন স্পে’শালিষ্ট এর পরামর্শ নিয়ে বি’জ্ঞাপন দেয়। কারণ অভীজ্ঞ লোক ছাড়া ফেসবুকে বিজ্ঞাপন দিলে বি’জ্ঞাপন দেওয়া সত্বেও কো’ম্পানি লাভবান হতে পারে না।

এ ধরনের জবের ক্ষেত্রে আপনার কাজ হবে ফে’সবুক নিয়ে এনালাইসিস করা। আপনি বিষয়টি যত বুদ্ধি মত্তার সাথে করতে পারবেন কোম্পানির বি’জ্ঞাপন ফেসবুকের মা’ধ্যমে তত বেশী কাঙ্খিত লোকের নিকট পৌছবে এবং কোম্পানির সেল তত বেশী হবে। সে জন্য এ ধরনের ফেসবুক বি’জ্ঞাপন স্পেশালিষ্টদের চাহিদা প্রচুর পরিমানে রয়েছে। সুতরাং কাজটি করতে পারলে আপনি অনায়াসে মাসে প্রচুর পরিমানে আয় করতে পারবেন।

সোশ্যাল মিডিয়া ম্যানেজার

আপনি হয়ত জানেন না যে, সেলিব্রিটিদের যত ফেসবুক পেজ থাকে সেগুলো তারা নিজেরা মে’নটেইন করে না। কারণ সিলিব্রিটিরা তাদের সোশ্যাল মিডিয়া গু’লোতে পো’স্ট বা টাইমলাইন মেনটেইন করার মত স’ময় পায় না। সে জন্য তাদের যত ধরনের সোশ্যাল মিডিয়া সাইট থাকে সে’গুলো নিয়মিত আপডেট রাখার জন্য একজন সো’শ্যাল মিডিয়া ম্যানেজার নিয়োগ দিয়ে থাকে।

তাছাড়া বড় বড় কো’ম্পানিগুলোও তা’দের সোশ্যাল মিডিয়া সাইট মে’নটেইন করার জন্য এ’কাধিক সোশ্যাল মিডিয়া ম্যানেজার নিয়োগ দিয়ে থাকে। এই কাজটি খুব সহজ এবং অল্প পরিশ্রম করে পা’র্টটাইটে অনলাইন জব করা যায়। কাজেই বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া যেমন ফেসবুক, ই’নস্টগ্রাম, টুই’টার সহ আরো বি’ভিন্ন ধরনের সো’শ্যাল মিডিয়া স’ম্পর্কে দক্ষতা থাকলে আপনি এই কাজটি করতে পারবেন।

কনটেন্ট রাইটিং খুবই গু’রুত্বপূর্ণ এবং শখের একটি কাজ। আপনার যদি কোন বিষয়ে লেখালেখির অভ্যাস থাকে তাহলে খুব সহজে কনটেন্ট রা’ইটিং জব করতে পারবেন। কারণ বর্তমানে অনলাইন মার্কে’টে কনটেন্ট রাইটিং এর প্রচুর পরিমানে চাহিদা রয়েছে।

আপনার যদি লেখা’লেখির উপর দক্ষতা থাকে তাহলে আপনি বিভিন্ন ফেসবুক গ্রু’পে কাজ পাওয়ার জন্য অফার করতে পারেন। কাজের অফার করলে নিঃসন্দেহে আপনার সাথে অসংখ্য অসংখ্য লোকজন যোগাযোগ করবে। এ ক্ষেত্রে আপনি যদি ভালোমানের আ’র্টিকেল প্রোভাইড করতে পারেন তাহলে প্রতিটি পো’স্টের মান অনুসারে ৫০০ থেকে ১০০০ টাকা পর্যন্ত ই’নকাম করতে পার’বেন।

তাছাড়া অনলাইনে অনেক বাংলা ও ইংরেজি ব্লগ রয়েছে যারা মা’সিক চুক্তিতে ক’নটেন্ট রাইটিং জব দিয়ে থাকে। আপনি তাদের সাথে যোগাযোগ করে আলাপ আ’লোচনার মাধ্যমে চুক্তিভিত্তিক কনটেন্ট রাইটিং এর কা’জ করতে পারেন।

আপনার যদি টে’কনোলজি বিষয়ে লেখার মত ভালো দ’ক্ষতা থাকে তাহলে আমাদের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন। আমরা টেকনোলজি বিষয়ে আ’র্টিকেল নিয়ে থাকি, যার বি’নিময়ে প্রতিটি পোস্টের জন্য ২০০ থেকে ৫০০ টাকা প’র্যন্ত পে করে থাকি। কাজ করতে চাইলে এই লিংক থেকে আমাদেরকে ইমেইল করতে পারেন।

ভয়েসওভার আর্টিস্ট যা আপনাকে নির্দিষ্ট লেখা দিবে

ভয়েসওভার মানে হচ্ছে আপনাকে এক’টি নি’র্দিষ্ট টপিকের উপর লেখা দেওয়া হবে। আর আপনাকে সেটা মুখে উচ্চারণ করতে বা পাঠ করতে হবে। এ ক্ষেত্রে আপনার ভয়েস ভালো হলে সহজে যে কেউ আ’পনাকে এর ধরনের কা’জ দিয়ে দিবে। কারণ যারা সুন্দরভাবে কথা বলতে পারে এবং যা’দের গলার স্ব’র ভালো তাদের দিয়ে ভয়েসওভার করানো হয়।

সাধারণত এ ধরনের কাজ অ’ধিকাংশ ক্ষেত্রে মেয়েদের দিয়ে করানো হয়। কাজেই আপনি যদি কুকিল কণ্ঠি এবং স্মার্ট ভাষি হন তাহলে আপনার জন্য ভ’য়েসওভার আ’র্টিস্ট হিসেবে জব পাওয়া কোন ব্যাপার হবে না। এ ধরনের অনলাইন জব করে বড় ধরনের এমাউন্ট ইনকাম করা যায়। অন’লাইনে পন্য প্রমোট করার জন্য বা ওয়েবসাইট প্রমোট করার জন্য এসইও ছাড়া সহজ কোন উপায় নেই।

কারো অনলাইন ব্যবসাকে অল্পদিনে গ্রাহক পর্যন্ত পৌছাতে চাইলে অব’শ্যই এসইও করাতে হয়। কাজেই বুঝতেই পারছেন যে, প্রত্যেক অনলাইন প্রতিষ্ঠানের অবশ্যই একজন এসইও এ’ক্সপার্ট এর প্রয়োজন রয়েছে। আপনি যদি এ’সইও বিষয়ে ভালো দক্ষতা অর্জন করতে পারেন তাহলে বিভিন্ন কোম্পানি ও প্রতিষ্ঠানের একজন এসইও এক্সপার্ট হিসেবে জব করতে পারবেন।

এ ধরনের কাজে প্রচুর ডিমান্ড থাকার কা’রনে একজন এসইও এক্সপার্ট অ’ল্প সময় কাজ করে প্রচুর প’রিমানে টাকা আয় করতে পারে। তাছাড়া এসইও বিষয়ে আপনার দ’ক্ষতা থাকলে নি’জের একটি ব্লগ তৈরি করেও ঘরে বসে স’হজে নিজে নিজে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। কারণ যারা ভা’লো এস’ইও জানে তারা খুব স’হজে ব্লগিং করে সফল হতে পারে। কাজেই আপনি যদি এসইও এক্সপার্ট নাও হয়ে থাকেন তাহলে ৫/৬ মাস চে’ষ্টা করলে কাজটি রপ্ত করে নিতে পারবেন।

পিটিসি ওয়েবসাইট হচ্ছে এমন কিছু ও’য়েবসাইট যে ওয়েবসাইটগুলোতে আপনাকে নির্দিষ্ট কিছু কাজ করার মাধ্যমে অর্থ দেওয়া হবে। অর্থাৎ এই সকল ওয়েবসাইটগুলোতে আপনারা ভিডিও দেখে, ক্যা’পচা পূরণ করে, বিজ্ঞাপনে ক্লিক করে আরো অনেক পদ্ধতি ব্যবহার করে আয় করতে পারবেন।

আমার দেখা এমন অনেকে আছে যারা বিভিন্ন ধরনের কা’জের পাশাপাশি এই স’কল পিটিসি ওয়েবসাইটগুলোতে ১-২ ঘণ্টা সময় দিয়ে প্রতি মাসে ২০ থেকে ২৫ হা’জার টাকা মাসে ইনকাম করছে। বর্তমান সম’য়ের জন’প্রিয় কিছু পিটিসি ওয়েবসাইটের নাম নিচে দেওয়া হল— এই ও’য়েবসাইট গুলো খুবই বিশ্বস্ত ওয়েবসাইট তারা দী’র্ঘদিন ধরে তাদের গ্রাহকদের পে’মেন্ট দিয়ে আসছে। তাই যদি পার্টটাইম এ অন’লাইনে কাজ করে ই’নকাম করতে চান তাহলে এই ওয়ে’বসাইটগুলোতে কা’জ করতে পারেন।

 ভিডিও এডিটর জনপ্রিয় একটি কাজ

বর্তমানে ইউটি’উব অনেক জনপ্রিয় হয়ে গিয়েছে। ইউটিউব কে ব্যবহার করে এখন অনেকের ল’ক্ষ ল’ক্ষ টাকা ইনকাম করছে। যারা ইউটিউব থেকে টাকা ইন’কাম করছেন তারা অবশ্যই ইউটিউব চ্যানেলের মাধ্যমে ইনকাম করে থাকেন।

আরেকটি ইউটিউব চ্যানেল চালানোর জন্য অবশ্যই ভিডিওর প্রয়োজন হয়ে থাকে। আর ভিডিও গুলো স’ঠিকভাবে কাস্টোমাইজ এবং বিভিন্ন ধরনের প্রয়োজনীয় বিষয়বস্তু যোগ করা ভিডিও এডি’টরের কাজ। তাই য’দি ভিডিও এডিটিং এর কাজটি সঠিকভাবে শি’খে নিতে পারেন তাহলে অবশ্যই এখান থেকে পা’র্ট টাইম ইনকাম করা সম্ভব।

বর্তমানে অনেক জায়গাতে ভিডিও এডিটিং এর কো’র্স করানো হয় হয়ে থাকে। এই কো’র্সগুলো করে যদি সঠিকভাবে ভিডিও এডিটিং টা শিখতে পারেন তাহলে যেকোনো কা’জের পা’শাপাশি এই কাজ করে ভালো অর্থ উ’পার্জন করা সম্ভব। ফেসবুকে বা মার্কেটপ্লেস থেকে আপনারা সরাসরি কাজ পেতে পারেন।

১০। এফিলিয়েট মার্কেটিং জব

বর্তমানে অনলাইন থেকে আ’য় করার যত সহজতর পদ্ধতি রয়েছে তাদের মধ্যে অ্যা’ফিলিয়েট মার্কেটিং করে আয় করাটা অনেক সহজ একটি উপায়। আপনার নি’জের কোন টাকার প্রয়োজন হবে না। আপনার যদি একটি ও’য়েবসাইট, ইউটিউব চ্যানেল অথবা ফেসবুক গ্রুপ থেকে থাকে তা’হলে খুব সহজেই এগুলো ব্যবহার করে অ্যা’ফিলিয়েট মার্কেটিং করে সেখান থেকে অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং হলো অন্য কোন কোম্পা’নির প্রোডাক্ট বিক্রি করে দেওয়া। সেই কোম্পানির বি’ক্রিকৃত প্রোডাক্টের লাভ থেকে কিছু অংশ আপ’নাকে কমিশন দিবে। এভাবে যত বেশি প্রোডাক্ট বিক্রি করতে পারবেন আর প’রিমাণটা ততটাই বেশি বাড়বে। বর্তমানে অনেকে অ্যা’ফিলিয়েট মার্কেটিং করার মাধ্যমে অ’নলাইন থেকে ভালো পরিমাণে অর্থ উপার্জন করছে।

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করার জন্য জনপ্রিয় কিছু ওয়েব সাইট রয়েছে যে ও’য়েবসাইটগুলোতে অ্যা’ফিলিয়েট মার্কেটিং করার মাধ্যমে আপনারা অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।বর্ত’মান সময়ের এফিলিয়েট মার্কেটিং করার জন্য জনপ্রিয় কিছু ওয়েব সাইট এর নাম নিচে উল্লেখ করা হলো:-

আ’পনারা চাইলে এই সকল সাইট গুলোতে অ্যাফিলিয়েট মা’র্কেটিং করতে পারেন। আ’মাদের দেশে এমন অনেক অ্যাফিলিয়েট মার্কেটার রয়েছে যারা শুধুমাত্র অনলাইনে এফিলিয়েট মার্কেটিং করার মাধ্যমে মাসে লক্ষাধিক টাকা উপার্জন করে থাকেন।

মোবাইল ফোন ব্যবহার করেও অনলাইনে বি’ভিন্ন ধরনের জব করা সম্ভব। ল্যাপটপ বা ডে’স্কটপ ছাড়া যে অনলাইনে জব করা যাবে না এমন কোন কথা নেই। হাতে থাকা স্মা’র্টফোনটিকে কাজে লাগিয়ে আপনারা অনলাইনে পার্টটাইম জব করার মাধ্যমে প্রতিমাসে ভালো অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।

মোবাইল এর মাধ্যমে আপনি ইউ’টিউব চ্যা’নেল চালাতে পারবেন, মোবাইল ব্যবহার করে আপনারা ব্লগিং করতে পারবেন, মোবাইল এর মাধ্যমে তা পূরণের বিভিন্ন ধরনের কাজ করা যাবে। তাহলে অ’বশ্যই বুঝতে পারছেন যে অনলাইন জব মোবাইল দিয়েও বর্তমানে করা সম্ভব।

যারা বলে থাকেন ল্যাপটপ বা ক’ম্পিউটার ছা’ড়া অনলাইনে কোন ধরনের জব করা যাবে না তা’দের এই ধারণাটা সম্পূর্ণ ভুল। অনলাইনে কাজ করার সঠিক মানসিকতা এবং ধৈর্য যদি আপ’নার ভিতরে থাকে তাহলে মো’বাইলের মাধ্যমেও অনলাইনে জব করা সম্ভব।

বাংলাদেশ এবং অনলাইন কাজ

বাংলাদেশ হচ্ছে একটি উ’ন্নয়নশীল দেশ। আমাদের দে’শের অধিকাংশ তরুণ বেকারের সমস্যায় ভুগে থাকেন। অর্থাৎ চাকরিপ্রার্থী হয়ে তারা তাদের কা’ঙ্ক্ষিত চাকরিটি পা’ননা। এতে করে অনেকে হ’তাশ হন। তাই বাং’লাদেশের মতো দরিদ্র একটি দেশে এই সকল তরুণদের জন্য অনলাইন জব হতে পা’রে ক্যারিয়ার গঠনের দারুন একটি নিয়ামক।

অফলাইনে চাকরির চেয়ে অনলাইনে চা’করির মাধ্যমে বেশি অর্থ উপার্জন করা যায় যদি নিজের ভেতরে সঠিক দক্ষতা থাকে। আর সেটা বাংলাদেশে বসবাস করেও অনেকে করে দেখাচ্ছেন। বাংলাদেশ এখন অনেকে আ’উটসোর্সিং করে প্রতিমাসে লক্ষাধিক টাকার বেশি আয় করে থাকেন।

অনেকে আউ’টসোর্সিং করার মাধ্যমে তাদের ক্যা’রিয়ার এবং লাইফস্টাইল সঠিকভাবে চালাতে পারছেন। পড়া’শোনা শেষ করে যারা চাকরির জন্য ঘুরে চাকরি নামক এই সোনার হরিণ পান না তারা চাইলে আ’উটসোর্সিং এর মাধ্যমে নিজেদের ক্যারিয়ার গঠন করতে পারেন।

তাছাড়া আ’পনি চাইলে এই খাতে উদ্যোক্তা হয়ে সামনে এগিয়ে যেতে পারেন। একজন উ’দ্যোক্তা হওয়ার মাধ্যমে আপনি যেমন নিজের ক’র্মসংস্থান করতে পারবেন তার সাথে সাথে বেশ কিছু লোকের ক’র্মসংস্থানও আপনার দ্বারা হবে। এতে করে দেশের উন্নতি হবে।

তাই বাংলাদেশের মতো দেশে’র জন্য অনলাইন জব খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কেননা এই প্লা’টফর্মে তারা পার্টটাইম এবং ফুলটাইম কাজ করতে পারবে এবং এখান থেকে অর্থ উপার্জন করতে পারবে।

অনলাইনে কাজ করে কি ক্যারিয়ার গঠন যেভাবে করা যায়

অনেকে এই প্রশ্ন’টা করে থাকেন যে অনলাইন জব করার মা’ধ্যমে ক্যারিয়ার গড়ার যাবে কিনা? ধরুন আপনি একজন গ্রাফিক্স ডিজাইনার। ফাইবার, আপওয়ার্ক, এই সকল ওয়েবসাইটগুলোতে গ্রা’ফিক্স ডি’জাইনারদের অসংখ্য কাজ রয়েছে।

আপনি যদি একজন প্র’ফেশনাল গ্রাফিক্স ডিজাইনার হয়ে থাকেন তাহলে এই সকল ও’য়েবসাইটগুলোতে আপনি আপনার কাজের বিষয়ে বলতে পারেন। আপনার কা’জের বিবরণ শুনে যদি কেউ আগ্র’হী হয়ে থাকে এবং আপনাকে যদি কাজ দি’য়ে থাকে তাহলে আপনি সেই কাজটা স’ম্পূর্ণ করার জন্য টাকা পাবেন।

এইভাবে আপনি যত পরিচিতি বাড়াতে পারবেন আপনার কাজের প’রিমাণ কিন্তু আরো বাড়বে। আর কাজ বাড়লে আপনার ইনকামও বে’শি হবে। গ্রা’ফিক্স ডিজাইনের কাজ এমন একটি কাজ যেটার চা’হিদা অনলাইনে সকল সময়ই থাকবে। অর্থাৎ এই কাজটি খুবই স’ম্ভাবনাময় একটি কাজ।

তাই সঠিক’ভাবে যদি আপনি এই কাজটি করে সা’মনে এগিয়ে যেতে পারেন তাহলে অবশ্যই এটির মাধ্যমে ক্যারিয়ার গঠন করা সম্ভব। আমা’দের দেশে বর্তমানে এমন অনেক ফ্রি’ল্যান্সার রয়েছে যারা ওয়েব ডে’ভেলপমেন্ট, ডিজিটাল মা’র্কেটিং, কনটেন্ট রাইটিং এইসকল কাজ’গুলো করার মাধ্যমে প্রতিমাসের লক্ষ টাকার বেশি ইনকাম করে থাকেন।

আমার দেখা এমন অনেক ফ্রি’ল্যান্সার রয়েছেন যারা শু’ধুমাত্র এই অনলাইন জব করেই এখন সফল। তাই অবশ্যই যারা অনলাইন জব করবেন বলে ভাবছেন তারা নিঃ’সন্দেহে সামনে এগিয়ে যেতে পারেন কেননা অনলাইন জব করেও ক্যারিয়ার গঠন করা সম্ভব। অ’নলাইন জব এর মাধ্যমে এখন সারা বিশ্বের মানুষের ক’র্মসংস্থানের সৃ’ষ্টি হচ্ছে। এখন আপনারা অসংখ্য অনলাইন জব পেয়ে যাবেন যে কাজগুলো করার মাধ্যমে এখান থেকে ভালো পরিমাণে অর্থ উপার্জন করা সম্ভব।

আপনার ভে’তরে যদি সুনির্দিষ্ট কিছু দ’ক্ষতা থেকে থাকে তাহলে এখান থেকে ভালো কি’ছু করা যাবে। তাই নিজেকে অনলাইন জব এর জন্য উপযুক্ত করে তুলে আপনি এই প্ল্যা’টফর্মকে টার্গেট করে এগিয়ে যেতে পারেন আ’শা করি এখান থেকে আপনি অবশ্যই সফল হবেন।

আশাকারি আমি আপনাকে অনলাইন জব স’ম্পর্কে পরিষ্কার ধারনা দিতে পেরেছি। আ’মাদের পোস্টটি পড়ে যদি কোন বিষয় সম্পর্কে বুঝতে অসুবিধা হয়ে থাকে তাহলে আ’মাদেরকে সরাসরি কমেন্টের মাধ্যমে জা’নাতে পারেন। আর অনলাইন জব সম্পর্কিত যদি কোন ধরনের প্র’শ্ন থাকে তাও আমাদের করতে পারেন। ধন্যবাদ।

Add a Comment

Your email address will not be published.